২০১৮ সালের অর্নাস ৪র্থ বর্ষ পরীক্ষার সংশোধিত ফলাফল

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক মো. বদরুজ্জামান বলেছেন, আমরা কলেজ খোলার অপেক্ষায় আছি। কলেজ চালু হলেই স্থগিত পরীক্ষা নেওয়া হবে। নতুন সূচিও দেওয়া হবে। একই দিনে একাধিক বর্ষের পরীক্ষা নিয়ে পরীক্ষা জট কমিয়ে ফেলার চিন্তা রয়েছে বলে তিনি জানান।

তিনি আরো বলেন, তবে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান না খুলে যদি এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া হয়, তাহলে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ও একই পথে হাঁটবে। কলেজে পাঠদান বন্ধ থাকলেও পরীক্ষা নেওয়া হবে। এটাও জট কমানোর একটি উত্তম পথ বলে মনে করা হচ্ছে।

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের কলেজ সমূহে নন-এমপিও শিক্ষকদের একটি তালিকা প্রেরণ সংক্রান্ত নোটিশ

ফেইসবুকে চাকরির সর্বশেষ আপডেট পেতে এখনই Job Circular - নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি গ্রুপ ও

নিয়মিত চাকরির আপডেট পেতে আমাদের গ্রুপে জয়েন করুন

Image may contain: text that says 'স্মারক জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয় পরীক্ষা নিয়ন্ত্রণ দপ্তর গাজীপুর ০৫(৩১) তারিখঃ ১৭/০৯/২০২০ বিজ্ঞপ্তি একাডেমিক কাউন্সিল সিন্ডিকেটের অনুমোদন সাপেক্ষে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে অনুষ্ঠিত ২০১৮ সালের অনার্স পরীক্ষার সংশোধিত ফলাফল ১৪/০৯/২০২০ তারিখে প্রকাশ হয়েছে। প্রকাশিত ফলাফলে কোন প্রকার অসঙ্গতি ভুলত্রুটি পরিলক্ষিত সংশোধন অথবা ফলাফল সম্পূর্ণ বাতিল করার ক্ষমতা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ সংরক্ষণ উল্লেখ্য কোর্সে অকৃতকার্য পরীক্ষার্থীদের উত্তীর্ণ হওয়ার প্রেক্ষিতে তাদের CGPA সহ ফলাফল প্রকাশ করা হলো। প্রকাশিত ফলাফল সম্পর্কে কোন পরীক্ষার্থী বা সংশ্লিষ্ট কারও কোন আপত্তি/অভিযোগ থাকলে ফলাফল প্রকাশের (এক) মাসের মধ্যে নিম্ন-স্বাক্ষরকারীর বরাবরে লিখিত ভাবে জানাতে হবে। নির্ধারিত সময়ের কোন অভিযোগ পরীক্ষা জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়, গাজীপুর। ফোনঃ ০২-৯২৯১০১৭, ফ্যাক্স: ০২-৯২৯১০৪৪ ই-মেইলঃ controller@nu.ac.bd Page2'

★ রেজাল্ট দেখার ওয়েবসাইট লিংকঃ http://www.nu.ac.bd/results/

পরীক্ষা নিয়ন্ত্রকের মতে, যেহেতু এইচএসসি পরীক্ষার্থীর চেয়ে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা বয়সে বড়। তাই এইচএসসি পরীক্ষা নেওয়া হলে সে আলোকে জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের পরীক্ষা হবে। তাছাড়া পরীক্ষা জট কমাতে ক্রাশ প্রোগ্রাম নেওয়া হবে বলেও জানান তিনি।

এদিকে পরিস্থিতি স্বাভাবিক হলে একের পর এক পরীক্ষা নেওয়া হবে বলে জানান জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য অধ্যাপক ড. হারুন অর রশিদ। তিনি বলেছেন, ছাত্রদের উদ্দেশ্যে বলব, তারা যেন বাড়িতে বসে পড়ালেখা করে। এজন্য যে, এই দুর্যোগ কাটিয়ে উঠার পর আমরা একের পর এক পরীক্ষা নিতে থাকব। আগে যেমন আমরা ক্রাশ প্রোগ্রাম করে ওভারকাম করেছি, সেই রকম মেথড এখানেও এপ্লাই করতে হবে।

 

জাতীয় বিশ্ববিদ্যালয়ের ডিগ্রি পাস কোর্স ২য় বর্ষ ও ৩য় বর্ষ, মাস্টার্স শেষ পর্ব পরীক্ষা এপ্রিলের মধ্যে অনুষ্ঠিত হবার কথা ছিল। ডিগ্রী ২য় ও মাস্টার্স শেষ বর্ষের রুটিনও প্রকাশ করা হয়েছিল। কিন্তু করোনা সংক্রমণের কারণে এসব পরীক্ষা স্থগিত রাখা হয়।